সোমবার   ০৩ আগস্ট ২০২০   শ্রাবণ ১৯ ১৪২৭   ১৩ জ্বিলহজ্জ ১৪৪১

৩২

বাংলাদেশকে ১০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভ দিচ্ছে ভারত

প্রকাশিত: ২৭ জুলাই ২০২০  

বাংলাদেশকে ১০টি ব্রড গেজ ডিজেল লোকোমোটিভ দিচ্ছে ভারত। রেলমন্ত্রক প্রকাশিত বিবৃতি অনুসারে ভিডিও কনফারেন্সিংয়ের মাধ্যমে এই হস্তান্তর অনুষ্ঠানে দুদেশের পদস্থ কর্তাদের হাজির থাকার কথা। দুদেশের বিদেশমন্ত্রী, রেলমন্ত্রী, হাইকমিশনার, রেল বোর্ডের চেয়ারম্যান ও দুদেশের সীমান্ত ঘেঁষা স্থানীয় স্টেশনের অফিসাররা থাকতে পারেন। খাতায় কলমে এই হাতবদল হওয়ার কথা পশ্চিমবঙ্গের নদিয়া জেলায় ইস্টার্ন রেলের গেদে স্টেশন ও বাংলাদেশের দর্শনার মধ্যে।
বাংলাদেশ গত বছরের এপ্রিলে ভারতকে লোকোমোটিভ পাঠানোর প্রস্তাব পাঠিয়েছিল। বর্তমানে ওদের লোকোমোটিভের ৭২ শতাংশেরই আর্থিক কর্মক্ষমতা পেরিয়ে গিয়েছে। সেইমতো ভারত বাংলাদেশকে ৩৩০০ এইচপি ডব্লুডিএম৩ডি লোকোমোটিভ দিচ্ছে। এগুলির কর্মক্ষমতা ২৮ বছর বা তার বেশি সময়ের। তাছাড়া এগুলি ঘন্টায় ১২০ কিমি বেগে চলার মতো করে তৈরি করা হয়েছে। এগুলি যাত্রী ও মালবাহী, দু ধরনের ট্রেনের ক্ষেত্রেই উপযোগী, মাইক্রোপ্রসেসর-নির্ভর কন্ট্রোল সিস্টেমও আছে।
বিবৃতিতে বলা হয়েছে, এই প্রযুক্তি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ও অন্য দেশের সঙ্গে তার ট্রেন যোগাযোগে সাহায্য করবে। বাংলাদেশ রেলওয়ের (বিআর) সর্বোচ্চ সীমাবদ্ধতার কথা মাথায় রেখে লোকোমোটিভগুলিকে বদলেছে রেলওয়ে। তাদের বিবৃতিতে আরও বলা হয়েছে, সব ধরনের রোলিং স্টক সরবরাহ ও রক্ষণাবেক্ষণে বিআর-এর শরিক হতে চাই আমরা। এই লোকোমোটিভগুলি বাংলাদেশের অভ্যন্তরে ট্রেন চলাচল উন্নত করবে, ভারতীয় রেলওয়ের সঙ্গে ইন্টারচেঞ্জও ভাল ভাবে হবে। দুদেশের রেলের সম্পর্ক জোরদার করবে।
বাংলাদেশের কিছু রিপোর্ট অনুসারে, গত বছরের মে পর্যন্ত বিআর-এর ১৭৮ মিটার গেজ লোকোমোটিভ ছিল, যেগুলির মধ্যে ১৩৯ টির আর্থিক কর্মক্ষমতার ২০ বছরের মেয়াদ ফুরিয়েছে। আর ৯০টি ব্রডগেজ লোকোমোটিভের ৫৫টির আর্থিক কর্মক্ষমতা শেষ হয়েছে।