শনিবার   ০৬ জুন ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ২৩ ১৪২৭   ১৪ শাওয়াল ১৪৪১

৫৩২

বিএনপির এমপিদের শপথ, কোন পথে বিএনপির রাজনীতি?

প্রকাশিত: ৩০ এপ্রিল ২০১৯  

নানা রকম টালবাহানা ও নাটকীয়তা শেষে অবশেষে আনুষ্ঠানিকভাবে দলীয় সিদ্ধান্ত অনুসারে সংসদে যোগ দিলেন বিএনপি থেকে জয়ী এমপিরা। প্রসঙ্গত গত ৩০ ডিসেম্বর একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ব্যাপক ভরাডুবির পর নির্বাচনে নানা অনিয়ম ও অভিযোগের কথা তুলে সংসদে যোগ দেওয়ার বিষয়ে নেতিবাচক অবস্থানে ছিলো বিএনপি ও ঐক্যফ্রন্ট। এমনকি ঐক্যফ্রন্ট থেকে দুজন এমপি শপথ নেওয়ার পরও শপথ না নেওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় অবস্থানে ছিলো বিএনপি। কিন্তু হঠাৎ করেই শেষ মুহূর্তে এসে ভোল পাল্টে সংসদে যোগ দেবার বিষয়ে ইতিবাচক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেছে বিএনপি এবং ইতোমধ্যে সংসদে যোগ দিয়েছে তারা।

বিএনপির সংসদে যোগ দেওয়া নিয়ে দলের ভেতরে বাইরে চলছে নানা রকম আলোচনা সমালোচনা। দলের অনেকেই বিএনপির এমপিদের এই শপথ গ্রহণ দলের তৃণমূল পর্যায়ের নেতাকর্মীদের আত্মত্যাগের সাথে বিশ্বাসঘাতকতার শামিল বলে আখ্যায়িত করছেন। দলের ভেতরে গুঞ্জন রয়েছে দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমানের সাথে বিএনপি থেকে বিজয়ী এমপিদের বিপুল অঙ্কের টাকার লেনদেন হয়েছে দলের পক্ষ থেকে সংসদে যোগদানের সিদ্ধান্ত পাশ করাতে।

বিএনপির এই শপথ গ্রহণের মাধ্যমে মূলত বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের সাংগঠনিক ভিত্তি হুমকির সম্মুখীন হবে মনে করছেন একাধিক রাজনৈতিক বিশ্লেষক। বিএনপির তৃণমূল পর্যায়ের অধিকাংশ নেতাকর্মী শুরু থেকেই সংসদে বিএনপির যোগ দেওয়ার ব্যাপারে নেতিবাচক ছিলো। নির্বাচন পরবর্তী সময়ে একাধিক দলীয় সভা সেমিনারে তৃণমূল নেতাকর্মীরা দলের সিনিয়র নেতাকর্মীদের কাছে সংসদে যোগ না দেওয়ার সিদ্ধান্তে অনড় থাকার দাবি জানিয়েছে জোরালোভাবে। দলের এমপিদের সংসদে যোগ না দিয়ে আন্দোলন কর্মসূচি ঘোষণার মাধ্যমে পুনঃনির্বাচন, বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়ার মুক্তিসহ বিএনপির সকল দাবি আদায়ে রাজপথে জোরালো আন্দোলন গড়ে তোলার দাবি জানিয়েছিলো তৃণমূলের পক্ষ থেকে। শেষ বেলায় এসে বিএনপির এমপিদের সংসদে যোগদানের ব্যাপারটি তৃণমূল নেতাকর্মীদের মনোবল ভেঙ্গে দিয়েছে। এমতাবস্থায় বিএনপির পক্ষ থেকে মাঠ পর্যায়ে আন্দোলন করা এক প্রকার অসম্ভব হয়ে পড়বে, কারণ তৃণমূল নেতাকর্মীরাই যেকোনো আন্দোলনের প্রাণভোমরা।

এদিকে বিএনপির বিজয়ী এমপিদের শপথ গ্রহণের মাধ্যমে বিএনপির রাজনীতির একপ্রকার ইতি টানা হয়েছে বলে মনে করছেন অনেকে। বিএনপিপন্থী একাধিক বুদ্ধিজীবী মনে করছেন বিএনপির এমপি সংসদে যোগ দেয়াতে এখন অংকটা সহজেই প্যারোলে মুক্তি পেয়ে চিকিৎসার জন্য লন্ডন পাড়ি দিবেন বিএনপি চেয়ারপার্সন খালেদা জিয়া। লন্ডনে চিকিৎসার জন্য গিয়ে বার্ধক্যজনিত কারণসহ খালেদার উপর একাধিক মামলা থাকায় লন্ডন থেকে তার দেশে ফেরার সম্ভাবনা খুবই ক্ষীণ। এছাড়া বর্তমানে বিএনপি রাজনৈতিকভাবে যে অবস্থানে আছে সেখান থেকে টেনে তুলে ধরা অনেকটাই অসম্ভব।

এই বিভাগের আরো খবর