বুধবার   ০৩ জুন ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ২০ ১৪২৭   ১১ শাওয়াল ১৪৪১

৭২৮

বিএনপির থেকে জয়ী প্রার্থীদের শপথ নেওয়ার গুঞ্জন

প্রকাশিত: ৪ এপ্রিল ২০১৯  

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভরাডুবির শিকার হয়েছিলো বিএনপি নেতৃত্বাধীন নির্বাচনী জোট জাতীয় ঐক্যফ্রন্ট। একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ৩০০ সংসদীয় আসনের মধ্যে ঐক্যফ্রন্ট থেকে মনোনীত হয়ে বিজয়ী হয়েছেন মাত্র ৮ জন। নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ এনে শপথ না নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছিলো বিএনপি। কিন্তু এর মধ্যে ঐক্যফ্রন্ট থেকে বিজয়ীদের মধ্যে দুজন সুলতান মোহাম্মদ মনসুর ও মোকাব্বির খান সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নিয়েছেন। তাদের শপথ গ্রহণের পরপরই বিএনপির বাকি এমপিদের শপথ গ্রহণের গুঞ্জন শোনা যাচ্ছে। 
ঐক্যফ্রন্ট থেকে বিজয়ীদের মধ্যে ছয়জন বিএনপির। তাঁরা হলেন বগুড়া-৬ আসনে বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর, বগুড়া-৪ আসনে মোশাররফ হোসেন, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-২ আসনে মো. আমিনুল ইসলাম, চাঁপাইনবাবগঞ্জ-৩ আসনে মো. হারুন অর রশীদ, ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে জাহিদুর রহমান ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনে আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া।
এর মধ্যে এই প্রথম ঠাকুরগাঁও-৩ আসনে বিএনপি জিতেছে। এই আসনে বিজয়ী জাহিদুর রহমান বলেন, এলাকার ৯০ শতাংশ কর্মী-সমর্থক শপথ নিয়ে সংসদে যাওয়ার পক্ষে। তাঁরা মনে করছেন, শপথ না নিলে এলাকাটি বিএনপির হাতছাড়া হয়ে যাবে।
এ বিষয়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়া-২ আসনের আবদুস সাত্তার ভূঁইয়া বলেন, ‘স্থানীয় নেতা-কর্মীরা চাচ্ছে সংসদে গিয়ে কথা বলি, যতটুকু পারা যায় কাজ করি।’
শুধু এই দুজনই নয়, বিএনপি থেকে জয়ী বাকি এমপিরা সংসদ সদস্য হিসেবে শপথ নিতে চাচ্ছেন বলে দলীয় সূত্রে জানা গেছে, কিন্তু এক্ষেত্রে বড় বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছেন লন্ডনে থাকা দলটির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপার্সন তারেক রহমান। লন্ডন থেকে একাধিকবার বিএনপি থেকে জয়ী প্রার্থীদের সাথে কথা বলে তাদের শপথ নেওয়া থেকে বিরত থাকার নির্দেশ দিয়েছেন তারেক। এই নির্দেশ অমান্য করলে দল থেকে বহিষ্কারের পাশাপাশি তাদের নানা রকম ক্ষতির সম্মুখীন হতে হবে বলেও হুমকি দিয়েছেন তারেক রহমান। 
বিএনপির কেন্দ্রীয় একটি সূত্র বলছে, শপথের বিষয়ে হাতে এক মাস সময় আছে। দলের মধ্যে এ ব্যাপারে পক্ষে-বিপক্ষে মত আছে। অনেকে মনে করেন, এত কম সাংসদ নিয়ে সংসদে তেমন কোনো ভূমিকা রাখা যাবে না। বরং পুনরায় নির্বাচনের দাবি হারিয়ে যাবে। আবার কেউ কেউ মনে করেন, সংসদে গিয়ে খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনা করা যেতে পারে। খালেদা জিয়া মুক্তি পেলে বিএনপির রাজনীতি গতি পাবে।

এই বিভাগের আরো খবর