বুধবার   ০৩ জুন ২০২০   জ্যৈষ্ঠ ২০ ১৪২৭   ১১ শাওয়াল ১৪৪১

৫২৮

মুজিব শতবর্ষে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় আসবে দেশ: প্রধানমন্ত্রী

প্রকাশিত: ১৩ নভেম্বর ২০১৯  

গণভবন থেকে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যেমে সাত বিদ্যুৎকেন্দ্র ও ২৩টি উপজেলায় শতভাগ বিশেষায়িত বিদ্যুতায়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ এর মার্চ মুজিব বর্ষ। এরই মধ্যে সারাদেশে শতভাগ বিদ্যুতায়ন করবো। যেখানে গ্রিডলাইন পৌঁছেনি, সেখানে সোলার বিদ্যুতের মাধ্যমে আলোকিত করবো। কেউ অন্ধকারে থাকবে না, সব ঘরে আলো জ্বলবে।

শতভাগ বিদ্যুতায়নের আওতাধীন ২৩ উপজেলা হলো বগুড়ার গাবতলী, শেরপুর, শিবগঞ্জ, চট্টগ্রামের লোহাগাড়া, ফরিদপুরের মধুখালী, নগরকান্দা, সালথা, গাইবান্ধার ফুলছড়ি, গাইবান্ধা সদর, পলাশবাড়ী, হবিগঞ্জের মাধবপুর, নবীগঞ্জ, ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ, মহেশপুর, কিশোরগঞ্জের করিমগঞ্জ, নাটোরের বড়াইগ্রাম, লালপুর, সিংড়া, নেত্রকোনার বারহাট্টা, মোহনগঞ্জ এবং পিরোজপুরের ভান্ডারিয়া, কাউখালী ও ইন্দুরকানী। এসব উপজেলা আজ থেকে শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় এল।

বাসসের খবরে বলা হয়েছে, বিদ্যুৎ বিভাগ জানায়, এই বিদ্যুৎকেন্দ্রগুলো উদ্বোধনের ফলে দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা এখন হয়েছে ২২ হাজার ৫৬২ মেগাওয়াট। একই সঙ্গে দেশের ৯৫ শতাংশ মানুষ বিদ্যুতের সুবিধার আওতায় এসেছে।

পাশাপাশি দেশের ৪৬১টি উপজেলার মধ্যে ২৩৪টি উপজেলা শতভাগ বিদ্যুতের আওতায় এল। আরও ১২৭ উপজেলায় শিগগিরই শতভাগ বিদ্যুতায়ন সম্ভব হবে, যেগুলো এখন উদ্বোধনের অপেক্ষায় রয়েছে। এ ছাড়া বাকি এক শ উপজেলায় আগামী ২০২০ সালের ১৭ মার্চ থেকে ২০২১ সালের ২৬ মার্চ পর্যন্ত মুজিববর্ষ উদ্‌যাপনকালে বিদ্যুতায়ন করা হবে।

বর্তমান সরকারের লক্ষ্য ২০২১ সাল নাগাদ দেশের বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২৪ হাজার মেগাওয়াট এবং ২০৩০ সাল নাগাদ ৪০ হাজার এবং ২০৪১ সাল নাগাদ ৬০ হাজার মেগাওয়াটে উন্নীত করা।


সেইসাথে প্রধানমন্ত্রী সকলকে বিদ্যুৎ ব্যবহারে সাশ্রয়ী এবং বিদ্যুৎ অপচয় বন্ধ করতে বলেন।

প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, খাদ্য নিরাপত্তার জন্য আমাদের চাষযোগ্য জমি সংরক্ষণ করতে হবে। কারো কাছে ভিক্ষা বা হাত পেতে চলতে চাই না। আমরা আত্ম মর্যাদা নিয়ে বাঁচতে চাই।
 

এই বিভাগের আরো খবর